প্রবল ভূমিকম্পে কেঁপে উঠল আন্দামান !

নিজস্ব সংবাদদাতা Thursday, January 1, 1970 Technology



চিনের সামরিক গতিবিধির উপর নজরদারি আরও বাড়াচ্ছে ভারত। আন্দামানের অদূরে আরও একটি এয়ার বেস চালু করল ভারতীয় নৌবাহিনী। দ্বীপ রাজ্যে এটি চতুর্থ এবং নেভির নিয়ন্ত্রণাধীন তৃতীয়এয়ার বেস। চিন তো বটেই, কার্যত গোটা দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার স্ট্র্যাটেজিক পয়েন্ট মলাক্কা প্রণালীর উপর নজর রাখার ক্ষেত্রে আরও সক্রিয় ভূমিকা নেবে এই এয়ার বেস, এমনটাই মনে করছেন কূটনৈতিক বিশেষজ্ঞরা। নয়া এই এয়ার বেসের নাম দেওয়া হয়েছে ‘কোহাসা’।

পোর্ট ব্লেয়ার থেকে প্রায় ৩০০ কিলোমিটার উত্তরে ১০০০ কিলোমিটারের রানওয়ে তৈরি হয়েছে। নজরদারি হেলিকপ্টার, ডোর্নিয়ার গোত্রের ছোট বিমান আপাতত এখান থেকে উড়তে পারবে। এছাড়া থাকছে বিমান মেরামতি, জ্বালানি ভর্তির মতো বন্দোবস্ত। তবে পরে ধাপে ধাপে প্রখমে রানওয়ের দৈর্ঘ বাড়িয়ে ৩০০০ মিটার করা হবে। তারপর আরও বাড়িয়ে করা হবে ৯০০০ মিটার। কাজ পুরোপুরি শেষ হলে যুদ্ধবিমান-সহ সব ধরনের বিমান এখানে ওঠানামা করতে পারবে। পাশাপাশি প্রাকৃতিক বিপর্যয়ে আটকে পড়া পর্যটক ও সাধারণ মানুষকে উদ্ধারেও গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্ট হয়ে উঠবে এই কোহাসা।

দেশের প্রতিরক্ষা এবং সামরিক দিক থেকে কৌশলগত ভাবে মলাক্কা প্রণালী অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্ট। একটি উদাহরণ দিলেই বোঝা যাবে। ভারত মহাসাগরে সারা বছর গড়ে প্রায় ১ লক্ষ ২০ হাজার জাহাজ চলাচল করে। তার মধ্যে শুধু এই মলাক্কা প্রণালী দিয়েই যাতায়াত করে প্রায় ৭০ হাজার জাহাজ। ফলে এই প্রণালীর উপর ভারতের কড়া নজরদারি থাকে ভারতীয় সেনার। নয়া এই এয়ার বেসের ফলে সেটা আরও বাড়বে বলেই মত প্রতিরক্ষা বিশেষজ্ঞদের। আবার কোহাসা এয়ার বেসটি দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার দেশগুলির ঘাড়ে নিঃশ্বাস ফেলবে বলেও মনে করা হচ্ছে। কারণ এখান থেকে মায়ানমার এবং তাইল্যান্ড মাত্র ৫০০ কিলোমিটার দূরে।